× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

ব্যাটিং প্রস্তুতিতে অশনিসংকেত

প্রবা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১০ মে ২০২৪ ২২:২৭ পিএম

আপডেট : ১০ মে ২০২৪ ২২:৩২ পিএম

শান্তরা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও রান করতে ব্যর্থ হয়েছিলেন— ছবি: আ. ই. আলীম

শান্তরা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও রান করতে ব্যর্থ হয়েছিলেন— ছবি: আ. ই. আলীম

মিরপুরের চতুর্থ টি-টোয়েন্টির কথাই ধরা যাক, দারুণ শুরু আনল টপ অর্ডার, পাওয়ার প্লেতে দুই টাইগার ওপেনার দেখালেন পাওয়ার শো, কিন্তু... এই কিন্তুতেই আটকে বাংলাদেশ। টপ অর্ডারে রান এলে মিডল অর্ডারে নামে ধস। মিডল সামলায় টপের ব্যর্থতা। সব ঠিক থাকলে কখনও ফিনিশিংটাই হয় যাচ্ছেতাই।

স্ট্রাইক রেট নিয়ে ভাবনার মাঝে তাতেই যোগ হয়েছে গোটা ব্যাটিং ইউনিট নিয়ে দুশ্চিন্তা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সবশেষ চার টি-টোয়েন্টি চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছে, টাইগার ব্যাটিংয়ের ঘাটতি। বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে উন্নতির জায়গাটা পুরোটাই ফাঁকা। বিশ্বকাপের আগে ব্যাটিং প্রস্তুতি দিয়ে রাখল অশনিসংকেতও। 

নাজমুল হোসেন শান্তরা যদি রান করতেই না পারেন, তবে বোলিং ইউনিট কতটা করতে পারবে? তুলনামূলক কম শক্তির জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের যে খাবি খাওয়া অবস্থা, তাতে মোটাদাগেই ব্যর্থতা বলা যায়। যদিও চট্টগ্রামের তিন ম্যাচের তিনটিতে জিতেই সিরিজ নিজেদের করেছে বাংলাদেশ। অনেক বড় প্রাপ্তি বটে! তবে তাতেও থাকছে ঘাটতি, বলা যেতে পারে আক্ষেপ। বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়ার আগে হতশ্রী ব্যাটিংটা ঝালাই করে নেওয়ার সুযোগ লুফে নিতে মোটাদাগে ব্যর্থ শান্তরা। মিরপুরে আজ ভালো শুরুর পর ব্যাটিং ধসটাই তার প্রমাণ। টিকে থাকা যেখানে চ্যালেঞ্জ সেখানে চার-ছক্কায় স্ট্রাইক রেট বাড়ানোর আশা বিলাসিতা বটে!

সৌম্য-তামিমের জুটি ভাঙতেই নামে ধ্বস

আজ ম্যাচের শুরুর ছয় ওভার দেখে কে ভেবেছিল বাংলাদেশ দেড়শ অব্দিও যেতে পারবে না? হয়েছে কিন্তু সেটাই। ১০০ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙতেই ভেঙে পড়েছে শান্তরা। দুইশ কিংবা তারও বেশি রানের সম্ভাবনা নিয়ে মোটে ১৪৩ রান পর্যন্ত যেতে পেরেছে বাংলাদেশ। তা-ও সব কটি উইকেট হারিয়ে। বিশ্বমঞ্চে লড়ার আগে বড় অশনিসংকেত! বাকি দলগুলো যখন দুইশ রানের পরিকল্পনা নিয়ে লড়বে তখনও বাংলাদেশের চিন্তা থাকবেÑ প্রতিপক্ষকে আগে ব্যাটিং করিয়ে যত সম্ভব অল্পতে আটকে লড়াই। বোলাররা সেই কাজে ব্যর্থ হলে অর্থাৎ প্রতিপক্ষ দেড়শ ছাড়িয়ে রান নিলেই হার নিশ্চিত ধরে টাইগারদের ম্যাচ শেষ করাÑ এটাই যেন শান্তদের গূঢ় পরিকল্পনা। অন্তত শেষ কিছু টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অমনটাই বলছে।

চতুর্থ টি-টোয়েন্টির স্কোরবোর্ড জানাচ্ছে, ১১.২ ওভারে প্রথম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তানজিদ হাসান তামিম ফেরেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি করে। আরেক ওপেনার সৌম্য যখন ফেরেন তখন দলীয় রান ১০৮। এরপরেই ধস। আগের তিন টি-টোয়েন্টির মতো এদিনও ব্যর্থ অধিনায়ক শান্ত, সাকিব, জাকের, রিশাদও মোটাদাগে ব্যর্থ। ব্যাট হাতে ফর্মের তুঙ্গে থাকা তাওহিদ হৃদয়ও পারেনি মান রাখতে। টেলএন্ডার যারা ছিলেন তাদেরও যেন ফেরার তাড়া বেশিই ছিল। টেনেটুনে রান দেড়শরও কম।

তাওহীদও ব্যর্থ ছিলেন আজ

আগের তিন টি-টোয়েন্টিতেও একই হাল ছিল শান্তদের। প্রথম দুটিতে ব্যাটিং তেমন পরীক্ষার মুখে না পড়লেও তৃতীয় ম্যাচটিতে হারের আশঙ্কা জেগেছিল। জিম্বাবুয়ের জিততে জিততে হেরে যাওয়া ম্যাচটিতে সিরিজ নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। কিন্তু আড়ালে পড়ে ব্যাটিং ইউনিটের ব্যর্থতা। চার টি-টোয়েন্টির সব কটিতে ম্যাচ জয়ের নায়ক মূলত বোলাররাই। বাকি তাওহিদ হৃদয় ছিলেন আপ টু মার্ক। তানজিদ হাসান দুটি ফিফটি হাঁকালেও তার স্ট্যন্স নিয়ে থাকছে কথা। মিডলে অনিক স্বস্তির হতে পারে। চতুর্থ টি-টোয়েন্টিতে ফেরা সৌম্য হতে পারে ওপেনিংয়ের ভরসা। তবে পুরো ব্যাটিং যেখানে নড়বড়ে সেখানে আশঙ্কা করার জায়গার অভাব নেই! বিশ্বকাপের আগে এই ব্যাটিং ইউনিটই বড় দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিশ্বকাপের ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা বা হালের নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে কতটা কঠিন সময়ের মাঝ দিয়ে যাবে বাংলাদেশ, বলাই বাহুল্য। শান্তদের ‘এলাম, খেললাম, চলে গেলাম’Ñ ব্যাটিং রূপ বড় দুশ্চিন্তার হয়ে দাঁড়াবে! ব্যাটে রান আসছিল না বলে লিটনকে বাদ রাখা হলো। গত তিন ম্যাচে টপ অর্ডারের ব্যর্থতার শুরু তার হাত ধরে। তিনে নামা শান্ত যেন আরও খোলসবন্দি। স্ট্রাইক রেটের বিচার যখন মুখ্য হওয়া উচিত তখন তার ধারাবাহিকতা হয়েছে প্রশ্নবিদ্ধ। রান করতে পারছেন না, উল্টো চাপ বাড়াচ্ছেন অধিনায়ক।

জয়টা আসে শেষ ওভারের রোমাঞ্চে

জাকের আলী অনিকের সক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও উইকেট ছুড়ে আসার ব্যাপারটিও দৃষ্টিকটু। তাওহিদ হৃদয়, সাকিব আল হাসান কিংবা বাকি যারা টপ ও মিডল সামলান তাদেরও বড় তাড়াহুড়ো। ফলশ্রুতি ব্যাটিং ধস। বড় রান করতে ব্যর্থ বাংলাদেশের জয়টা নিশ্চিত হলেও বিশ্বকাপের আগে এই হতশ্রী ব্যাটিং ইউনিট দুশ্চিন্তার কম রাখছে না।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা