× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

প্রশিক্ষণে চীনে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের ৫০ নেতা

প্রবা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৬ মে ২০২৪ ১২:৫৩ পিএম

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

১৪ দলের নেতাদের পর এবার চীন সফরে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ ও দলটির সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর কেন্দ্রীয় নেতারা। চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে আগামী ২৫ মে দলটির ৫০ সদস্যের এই প্রতিনিধিদল চীনে যাবে। সেখানে প্রতিনিধিদলের সদস্যরা প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন বলে জানা গেছে। এই সফরের পর আগামী ২৫ জুন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের আরেকটি টিমের চীন সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে। 

এদিকে গত ১৩ মে সোমবার চীনে গেছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরিকদের ৯ সদস্যের একটি টিম। এসব সফরের কারণে অনেকেই মনে করছেন, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের চীনমুখী তৎপরতা বেড়েছে এবং এর পেছনে দেশের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতির পাশাপাশি বিশ্ব পরিস্থিতিরও ভূমিকা রয়েছে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বাড়ানোর পাশাপাশি পার্টি টু পার্টি সম্পর্ক বৃদ্ধির অংশ হিসেবে গত কয়েক বছর ধরে আওয়ামী লীগ নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়ে আসছে চীন। আওয়ামী লীগ ও শরিক দলের নেতাদের পাশাপাশি সহযোগী সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতাদের ৫০ সদস্যের বড় টিম পাঠানোর মধ্য দিয়ে দলটির চীন অভিমুখী ঝোঁকেরও প্রকাশ পাচ্ছে। যদিও আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল নেতা দাবি করছেন, এটা দুই দেশের ক্ষমতাসীন দলের মধ্যে বিরাজমান স্বাভাবিক সম্পর্কের বেশি কিছু না। 

ছাত্র-যুব নেতাদের প্রতিনিধিদল

চীনের পক্ষ থেকে আমন্ত্রিত আওয়ামী লীগের এই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য তানভীর শাকিল জয়। টিমটি যাবে চীনের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ ঝেজিয়াংয়ে। এই টিমে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগের ৮ জন কেন্দ্রীয় নেতা, স্বেচ্ছাসেবক লীগের ৮ জন কেন্দ্রীয় নেতা, মহিলা আওয়ামী লীগের ৮ জন, যুব মহিলা লীগের ৬ জন, মহিলা শ্রমিক লীগের ৫ জন, ছাত্রলীগের ৮ জন ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ডেটাবেজ টিমের ৮ জন অংশ নিচ্ছেন। 

এ প্রসঙ্গে টিমের নেতা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি তানভীর শাকিল জয় প্রতিদিনের বাংলাদেশকে বলেন, ‘চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে ৫০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল চীন সফরে যাচ্ছে। মূলত সেখানে একটি প্রশিক্ষণে অংশ নেবেন এই প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। সেখানে তাদের জনগণের সঙ্গে পার্টির সম্পর্ক, দলটির জনগণের জন্য পরিচালিত কার্যক্রমসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এ ছাড়া বেইজিংয়ে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নেতাদের সঙ্গেও মতবিনিময় হওয়ার কথা রয়েছে।’

চীনে অবস্থান করছেন ১৪ দলের নেতারা

এর আগে গত সোমবার চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোটের তিন শরিক দলের ৯ জন শীর্ষ নেতা চীনে গেছেন। এই দলে আছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দীলিপ বড়ুয়া, জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, জাসদের কার্যকরী সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রবিউল আলম, জাসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহম্মদ মোহসীন, ওয়ার্কার্স পার্টির নারী নেত্রী লুৎফুন্নেছা খান, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য মোস্তফা লুৎফুল্লাহ, সাম্যবাদী দলের নেতা তৃপ্তি বড়ুয়া, হ মোশায়হিদ প্রমুখ। বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে প্রতিনিধিদলকে বিদায় জানান। 

যা বলছেন পর্যবেক্ষকরা

এমন প্রেক্ষাপটে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, গত কয়েক বছরে আওয়ামী লীগ নেতাদের ধারাবাহিক সফরের মধ্য দিয়ে চীনের প্রতি আওয়ামী লীগের ঝোঁক বেড়েছে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। 

এই প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের এক কেন্দ্রীয় নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্বÑ কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’, বঙ্গবন্ধুর এই আদর্শ ধারণ করে আওয়ামী লীগ। তা ছাড়া চীন বাংলাদেশের উন্নয়নের বড় ধরনের অংশীদার। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশটি বাংলাদেশের উন্নয়নে বড় ধরনের ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। যে সম্পর্ক এক সময় ‘গভর্নমেন্ট টু গভর্নমেন্ট’ ছিল, সেটা এখন ‘পার্টি টু পার্টি’ পর্যায়ে পৌঁছেছে। আগামী দিনগুলোয় হয়তো এই সম্পর্ক আরও উচ্চতর পর্যায়ে পৌঁছবে। এটা দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থেই হবে। আওয়ামী লীগ সকলের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখেই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার নীতিতে বিশ্বাসী।’ প্রতিবেশী দেশের প্রসঙ্গ তুলে এই নেতা বলেন, ‘ভারতের কংগ্রেসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক সম্পর্ক হলেও বর্তমান ক্ষমতাসীন দল বিজিপির সঙ্গেও খুবই ভালো সম্পর্ক। ভারতের চলমান নির্বাচন ও বিজেপির দলীয় কার্যক্রম পরিদর্শন করার জন্য সম্প্রতি আওয়ামী লীগকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সেই আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে সেখানে আমাদের দলের একজন কেন্দ্রীয় নেতা অবস্থান করছেন। আওয়ামী লীগ সবার সঙ্গে ভালো সম্পর্ক বজায় রেখেই এগিয়ে যাওয়ায় বিশ্বাসী।’ 

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্র জানাচ্ছে, বামপন্থি কয়েকটি দলকে নিয়ে ১৪ দলীয় জোট গঠনের পর ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর চীনের সঙ্গে দলটির সম্পর্ক বাড়তে থাকে। এক্ষেত্রে ১৪ দলীয় জোটের দুটি শরিক দলের বড় ধরনের ভূমিকা ছিল। এক্ষেত্রে সেই সময় আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের জোরালো ভূমিকাও লক্ষ করা গেছে। ২০১২ সালের পর থেকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে দেশটিতে সফরে যেতে শুরু করেন। দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা বিভিন্ন ভাগে বিভক্ত হয়ে বহুবার চীন সফর করেছেন। সরকারিভাবে শুরু হওয়া এই সম্পর্ক আস্তে আস্তে দলীয় পর্যায়ে নিয়ে যেতে থাকে দুই রাষ্ট্রের দল দুটি। 

এই সম্পর্ককে দুই দল ২০১৯ সালে আনুষ্ঠানিক রূপ দেয়। ওই বছর ২১ মার্চ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও চীনের কমিউনিস্ট পার্টির মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা সম্পর্কিত সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। আওয়ামী লীগের আমন্ত্রণে সে সময় চীনা কমিউনিস্ট পার্টির একটি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সফর করে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির পক্ষে দলটির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের মন্ত্রী সং তাও এবং আওয়ামী লীগের পক্ষে দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ সমঝোতা স্মারকে সই করেন। বাংলা, চায়নিজ ও ইংরেজি ভাষায় এই স্মারক সই করা হয়। 

একই বছর আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর প্রয়াত সদস্য আবদুল মতিন খসরুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগে কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি ২০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল চীন সফর করে। সর্বশেষ গত বছর দ্বাদশ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও বিমানমন্ত্রী ফারুক খানের নেতৃত্বে ক্ষমতাসীন দলের কেন্দ্রীয় নেতারা দুবার চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে দেশটি সফর করেন। ফারুক খানের নেতৃত্বে এর আগেও আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদল চীন সফর করেছে।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা