× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

বিএনপির মূল্যায়ন

সরকারের ভোট বাড়ানোর কৌশল কাজ করেনি

বাছির জামাল

প্রকাশ : ১০ মে ২০২৪ ০৯:৪৫ এএম

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

উপজেলা নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক করে তোলার জন্য সরকার যে কৌশল নিয়েছিল, তা কোনো কাজ করেনি বলে মনে করছে বিএনপি। গত বুধবার অনুষ্ঠিত এ নির্বাচন সম্পর্কে মূল্যায়ন করতে গিয়ে দলটির নীতিনির্ধারকরা তাৎক্ষণিকভাবে জানিয়েছেন, উপজেলা পরিষদের বিরোধী দলবিহীন প্রথম ধাপের ভোটে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েও কেন্দ্রে ভোটার টানতে পারেননি। নির্বাচনে মন্ত্রী এবং সংসদ সদস্যদের প্রভাব খাটানোর পাশাপাশি জাল ভোট দেওয়া, পেশিশক্তির ব্যবহার ও টাকা দিয়ে ভোট কেনার মতো ঘটনাও ঘটেছে। ৭ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনের মতো স্থানীয় সরকারের এ নির্বাচনেও ভোটার উপস্থিতি ছিল একেবারেই কম। তাই ভোটের হার বাড়াতে সংসদ নির্বাচনের মতোই ‘কারচুপি ও অপকৌশলের’ আশ্রয় নিয়েছে ক্ষমতাসীনরা।  

গত বুধবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে দলের নীতিনির্ধারকরা উপজেলা নির্বাচন নিয়ে এ মূল্যায়ন করেন। তবে এ বৈঠকে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে বিস্তর আলোচনা হয়নি বলে জানা গেছে। পরের বৈঠকে এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হতে পারে। কমিটির নেতারা নির্বাচনের অনিয়ম ও জালিয়াতির চিত্র সংগ্রহ করার পরামর্শ দিয়েছেন। 

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু প্রতিদিনের বাংলাদেশকে বলেন, ‘৭ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতোই উপজেলা নির্বাচন অকার্যকর হয়েছে। নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক করে তুলতে ও ভোটার উপস্থিতি বাড়াতে সরকার যে কৌশল নিয়েছে তা ব্যর্থ হয়েছে। জনগণ বিএনপির আহ্বানে সংসদ নির্বাচনের মতো এ নির্বাচনও বর্জন করেছে।’ 

‘প্রকৃত ভোট পড়ার হার সংসদ নির্বাচনের মতোই’

এবার উপজেলা পরিষদের প্রথম ধাপের নির্বাচনে গড়ে ৩৬ দশমিক ১ শতাংশ ভোট পড়েছে। এর আগে ২০১৯ সালে বিএনপিবিহীন উপজেলা নির্বাচনে ভোট পড়েছিল ৪০ দশমিক ২২ শতাংশ। এবার আরও কমেছে। এবার বিএনপি, জামায়াত, গণতন্ত্র মঞ্চ, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), ইসলামী আন্দোলনসহ বিভিন্ন দল ভোট বর্জন করেছে। সব দলের অংশগ্রহণে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত চতুর্থ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভোট পড়েছিল ৬১ শতাংশের মতো। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার দায়িত্ব নেওয়ার পর ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারি তৃতীয় উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভোট পড়েছিল ৬৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ। অর্থাৎ গত দুই নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি ব্যাপকভাবে কমেছে।

এসব তথ্যের উল্লেখ করে বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ নেতারা বলছেন, দলীয় সরকারের অধীনে ভোটের প্রতি মানুষের অনাস্থা তৈরি হয়েছে। ইসি চলতি উপজেলা নির্বাচনে ভোট পড়ার যে হিসাব দিয়েছেন, তার সঙ্গে দ্বিমত প্রকাশ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘প্রকৃত ভোট পড়ার হার ৭ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনের মতোই। একদলীয় উপজেলা ভোটেও অনিয়ম, কারচুপি ও জালিয়াতি হয়েছে।’ 

‘গ্রহণযোগ্যতা পেতে দলের সমর্থন লাগবে’

প্রথম ধাপের নির্বাচনে অধিকাংশ উপজেলায়ই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। বিএনপি থেকে যারা এ নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন এবং যার পরিপ্রেক্ষিতে বহিষ্কৃত হয়েছিলেন, তাদের মধ্যে মাত্র ছয়জন চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন। এ তথ্য তুলে ধরে দলের নীতিনির্ধারকরা জানাচ্ছেন, ‘এর মাধ্যমে প্রমাণ হলো দলের সমর্থন ছাড়া জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পাওয়া যায় না।’ তারা প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনে বহিষ্কৃতদের এমন শোচনীয় পরাজয়ের তথ্য ধরে বলছেন, ‘প্রথম ধাপের নির্বাচন পরবর্তী ধাপের প্রার্থীদের জন্য বার্তা। প্রার্থীরা ভোট থেকে সরে দাঁড়ালে দলে ফেরার এখনও সুযোগ আছে। নইলে প্রার্থী হয়েও হারবেন, দলের পদও হারাবেন।’    

দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে ২৯ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান অন্তত ৬৪ জন প্রার্থী হয়েছেন। তাদের দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ অন্য সব ধরনের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ভারতীয় ৫২৭ খাদ্যদ্রব্যে ক্যানসারের জীবাণু পাওয়ায় উদ্বেগ 

ভারত থেকে বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা ৫২৭টি খাদ্যদ্রব্যে ‘ক্যানসারের জীবাণু’ পাওয়া গেছে,- এমন খবরে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিএনপি। 

গত বুধবার দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। এতে জনস্বাস্থ্য সম্পৃক্ত এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে লিখিতভাবে একটি বিবৃতি দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়। বিএনপি শিগগির এ বিষয়ে একটি বিবৃতি দিতে পারে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি ভারতীয় খাদ্যদ্রব্যে ‘ক্যানসারের জীবাণু’ পাওয়ার অভিযোগ তুলেছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) খাদ্য নিরাপত্তা বিভাগ। 

এছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ও ন্যাশনাল ব্যাংকের সংবাদ সম্মেলনে রিপোর্টারদের নগদ অর্থ দিয়ে বিব্রত করার ঘটনার নিন্দা জানানো হয়। বৈঠকে সাংগঠনিক নানা বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। এ সময় সারা দেশে বিএনপির সদস্যদের কাছ থেকে নির্ধারিত মাসিক বকেয়া পরিশোধের বিষয়টিতে জোর দেওয়া হয়। 

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে স্থায়ী কমিটির এ ভার্চুয়াল বৈঠক হয়।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা