× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

বিবৃতিতে সাংবাদিক নেতারা

বেআইনিভাবে সাংবাদিক রানাকে সাজা দেওয়া হয়েছে

প্রবা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০৯ মার্চ ২০২৪ ১৮:২৭ পিএম

আপডেট : ০৯ মার্চ ২০২৪ ২০:২৪ পিএম

কারাবন্দি সাংবাদিক শফিউজ্জামান। ছবি : সংগৃহীত

কারাবন্দি সাংবাদিক শফিউজ্জামান। ছবি : সংগৃহীত

শেরপুরের নকলায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ে শফিউজ্জামান রানা নামের স্থানীয় এক সাংবাদিককে কারাদণ্ড দেওয়াকে বেআইনি দাবি করে তীব্র নিন্দা ও উদ্বেগ জানিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা। তারা সাংবাদিক রানাকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এক বিবৃতিতে ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) নেতারা বলেন, এ ধরনের নিপীড়ন সাংবাদিকের তথ্য অধিকার খর্ব করার সঙ্গে মুক্ত সাংবাদিকতার অন্তরায়। গণমাধ্যমের কন্ঠরোধ এবং সাংবাদিক হত্যা-নির্যাতন, হামলা-মামলা, গ্রেপ্তার অব্যাহত থাকলে গণমাধ্যম তার অস্তিত্ব হারাতে বসবে।

শনিবার (৯ মার্চ) এই যৌথ বিবৃতি দেন বিএফইউজে সভাপতি রুহুল আমিন গাজী ও মহাসচিব কাদের গনি চৌধুরী এবং ডিইউজের সভাপতি মো. শহিদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক খুরশীদ আলম।

শফিউজ্জামান রানা দৈনিক দেশ রূপান্তরের নকল উপজেলা সংবাদদাতা। তিনি গত মঙ্গলবার ইউএনও সাদিয়া উম্মুল বানিনের কার্যালয়ে তথ্য অধিকার আইনে এডিপি নামের একটি প্রকল্পের তথ্য চেয়ে আবেদন করতে যান। এ সময় সাদিয়া উম্মুল বানিন দাপ্তরিক আলোচনায় ছিলেন। পরে সাংবাদিক রানা  ইউএনওর সহকারী শীলা আক্তারের কাছে আবেদনটি জমা দিয়ে রিসিভ কপি চান। এ সময় শীলা আক্তার তাকে অপেক্ষা করতে বলেন। রানা বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে তাকে আবারও রিসিভ কপির কথা বললে শীলা আক্তার ওই দাপ্তরিক আলোচনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেন। এ সময় শফিউজ্জামান ফোনে ভোগান্তির কথা জেলা প্রশাসককে জানালে শীলা বিষয়টি সাদিয়া উম্মুল বানিনকে জানান। একপর্যায়ে ওই সাংবাদিককে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে সাজা দেওয়া হয়।  

এই ঘটনায় দেওয়া বিবৃতিতে সাংবাদিক নেতারা বলেন, তথ্য অধিকার সাংবিধানিক মৌলিক অধিকারের অবিচ্ছেদ্য অংশ। তথ্য অধিকার জনগণের মৌলিক অধিকারও। তথ্য অধিকার আইনের একটি শক্তিশালী বিধান হলো– সরকারি কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ পরিমাণ তথ্য জনসমক্ষে প্রকাশ করবে স্বতঃপ্রণোদিতভাবে। নকলায় সরকারি কর্মকর্তারা সাংবাদিক রানার সঙ্গে যে আচরণ করেছেন সেটি পুরোপুরি আইনের লঙ্গন। সরকারের নীতিনির্ধারক ও জনপ্রশাসনের কর্মকর্তাররা তথ্য অধিকার আইন সম্পর্কে সঠিকভাবে উপলব্ধি করতে পারলে তারা কখনোই তথ্যকে সরকারি সম্পত্তি মনে করতেন না।

তারা আরও বলেন, জনগণের তথ্য প্রাপ্তির অধিকার নিশ্চিত করতে তথ্য অধিকার আইন-২০০৯ প্রণয়ন করা হয়। এ আইনের শুরুতেই দুর্নীতি হ্রাস ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় তথ্যের অবাধ প্রবাহের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। নানা বিধিবিধান থাকা সত্ত্বেও সরকারের আন্তরিকতার অভাবে তথ্য নিয়ন্ত্রণ বা গোপনের অপচেষ্টাকে দমন করা যাচ্ছে না।

বিবৃতি তথ্য অধিকার আইনের কার্যকর বাস্তবায়নে রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক পর্যায়ে গোপনীয়তার মানসিকতা থেকে বেরিয়ে স্বচ্ছতার সংস্কৃতিতে উত্তরণের আহ্বান জানান সাংবাদিক নেতারা। একইসঙ্গে সাইবার নিরাপত্তা আইনসহ সব কালাকানুন বাতিলের দাবি জানান তারা।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা