× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

বাকৃবির আবাসিক হলে খাবারের দাম বাড়ছে, কমছে মান

আমানউল্লাহ, বাকৃবি

প্রকাশ : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২২:২৮ পিএম

বাকৃবির আবাসিক হলে খাবারের  দাম বাড়ছে, কমছে মান

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) আবাসিক হলগুলোর ডাইনিংয়ে খাবারের দাম দফায় দফায় বেড়েছে; অথচ বাড়েনি খাবারের মান। বর্তমানে যেসব খাবার পরিবেশন করা হচ্ছে তা খুবই নিম্নমানের বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তারা। পরিবারের কাছ থেকে যে টাকা আনেন, তা দিয়ে মাসের ব্যয় মেটাতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন তারা।

এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যাও বেড়ে গেছে- যারা তিন বেলা খাবার না খেয়ে দুই বেলা করে খাচ্ছেন। ফলে তাদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষার ওপর এর প্রভাব পড়ছে। সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে বিভিন্ন সময় খাবারের দাম কমানো ও মান বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন; কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।

আবাসিক হলগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছেলেদের ৯টি হলের মধ্যে ৩টি হলের ডাইনিং বন্ধ রয়েছে। ফজলুল হক হল, ঈশা খাঁ হল ও আশরাফুল হক হলের ডাইনিং বন্ধ রয়েছে। বাকি ৬টি হলের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হল ও শহীদ জামাল হোসেন হলে দুই বেলা খাবার খেতে শিক্ষার্থীদের ৯০-১০০ টাকার মতো খরচ পড়ছে। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হল ও শামসুল হক হলে ৯০ টাকা, শহীদ নাজমুল আহসান হলে ৮০-৯০ টাকা খরচ হয়। শাহজালাল হলে একবেলা খাবারে দেড় প্লেট ভাত, মাছ ও ভর্তা খেতেই ৬০ টাকার মতো খরচ পড়ে শিক্ষার্থীদের। অথচ খাবারের মান তো বাড়েইনি, আরও খারাপ হয়েছে।

এদিকে ছাত্রী হলগুলোর মধ্যে দুবেলা খাবার খেতে রোজী জামাল হলে ৮৫, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল ও সুলতানা রাজিয়া হলে ৮০, বেগম রোকেয়া হলে ৭৫ টাকা খরচ পড়ছে। অন্যদিকে তাপসী রাবেয়া হলে এক বেলা খেতেই প্রায় ৫০-৫৫ টাকার মতো খরচ পড়ছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের। হলগুলোতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে রান্নার পাশাপাশি খাবারের মান নিম্নমানের বলে জানান শিক্ষার্থীরা।

বাকৃবির পশুপালন অনুষদের তৃতীয় বর্ষের এক শিক্ষার্থী জানান, সব জিনিসের মতো বিদ্যালয়ের হলগুলোর খাবারের দামও বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু খাবারের মানের দিকে বিন্দুমাত্র নজর নেই কর্তৃপক্ষের। এ ছাড়াও কয়েকটি আবাসিক হলের ডাইনিং বন্ধ রয়েছে। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের আব্দুল জব্বারের মোড় কিংবা অন্য কোনো জায়গা থেকে আমাদের খাবার কিনে খেতে হচ্ছে। হোটেলগুলোতে চড়া দামে খাবার বিক্রি করা হচ্ছে।

বেগম রোকেয়া হলের দ্বিতীয় বর্ষের আবাসিক এক শিক্ষার্থী বলেন, অন্যান্য সরঞ্জামের দামের সঙ্গে সঙ্গে ডাইনিংয়ের খাবারের দাম বেড়েছে। কিন্তু পুষ্টির মাত্রায় চিন্তা করলে খাবারের মান একেবারেই নিম্ন।

এদিকে এমন তথ্যও জানা গেছে, প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের সবার জন্য ডাইনিংয়ে কুপন কাটা বাধ্যতামূলক। ডাইনিংয়ের যদি পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার না পান, তবে বাইরে থেকে আলাদা করে খাবার খেতে হয়। এতে এক বেলার খাবারের জন্য দ্বিগুণ টাকা খরচ হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট কাউন্সিলের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ডাইনিং বন্ধের বিষয়ে জানি না। এগুলো প্রভোস্ট কাউন্সিলের দায়িত্বের ভেতরে পড়ে না। ডাইনিংয়ে নিম্নমানের খাবার পরিবেশনের বিষয়ে তিনি বলেন, প্রত্যেকটি হলের নিজ নিজ প্রভোস্ট এগুলো দেখভাল করেন। তারা বিষয়টি সমাধান করবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, ডাইনিং চালু করার জন্য বন্ধ হলগুলোর প্রভোস্টদের সঙ্গে কথা বলব। খাবারের মান ভালো করার জন্য ডাইনিংয়ে যারা দায়িত্বে আছেন, তাদের কাজ করতে হবে। বিশেষ করে ছাত্রনেতাদের ভূমিকা রাখতে হবে। হাউস টিউটররা এ কাজে সাহায্য করা উচিত। ডাইনিং চালু হলে ও খাবারের মান ভালো হলে শিক্ষার্থীদের খাবারের খরচ কমবে।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা