× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

এলজিইডি নোটিস দিয়ে খালাস

সেতু ভেঙে মালপত্র বিক্রি করলেন ঠিকাদার

গাইবান্ধা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৬ মে ২০২৪ ১৩:৫৯ পিএম

আপডেট : ১৬ মে ২০২৪ ১৪:০২ পিএম

গাইবান্ধা সদর উপজেলার থানসিংহপুর কাচারি সড়কে আলাই নদীর ওপর নির্মাণাধীন সেতু। প্রবা ফটো

গাইবান্ধা সদর উপজেলার থানসিংহপুর কাচারি সড়কে আলাই নদীর ওপর নির্মাণাধীন সেতু। প্রবা ফটো

গাইবান্ধা সদর উপজেলার থানসিংহপুর কাচারি সড়কে আলাই নদীর ওপর দেড় যুগ আগে নির্মাণ করা হয় একটি ব্রিজ। এই ব্রিজ দিয়ে লোকজন শুধুমাত্র পায়ে হেঁটে চলাচল করতে পারত। উন্নত যোগাযোগের স্বার্থে সেখানে নতুন ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। প্রয়োজন দেখা দেয় পুরোনো ব্রিজটি ভেঙে ফেলার। পুরোনো মালামাল বিক্রি করতে নিয়মানুযায়ী দরপত্র আহ্বান করতে হয়। কিন্তু দরপত্র আহ্বান না করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তদারকি না থাকায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ‘জাকাউল্লা অ্যান্ড ব্রাদার্স’ ব্রিজের দুই পাশের ইট-রডসহ সবকিছু খুলে নিয়ে বিক্রি করে দেয়। এভাবে প্রকৌশলী-ঠিকাদারের রফাদফায় সরকারি টাকা গায়েব হয়ে যায় বলে অভিযোগ উঠেছে। ভেঙে ফেলা পুরোনো এই ব্রিজটি গাইবান্ধা সদর উপজেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) নিয়ন্ত্রণাধীন।

এলজিইডি সূত্রে জানা গেছে, মালপত্র চুরির পর গাইবান্ধা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী সাবিউল ইসলাম সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শানোর জন্য একটি নোটিস প্রদান করেন এবং মালামাল ফেরত দেওয়ার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ, বিষয়টি জানার পর এলজিইডি কর্মকর্তা নোটিস দিয়েই দায় সেরেছেন।

কিন্তু এ ব্যাপারটিকে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স জাকাউল্লা অ্যান্ড ব্রাদার্সের চেয়ারম্যান মো. জাকাউল্লাহ্ গুরুত্ব দিচ্ছেন না। তিনি বলেন, আমার সারা দেশে অনেকগুলো কাজ চলছে। গাইবান্ধায় ব্রিজের মালামাল বিক্রির বিষয়ে আমি কিছু জানি না। গাইবান্ধায় আমার প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে পারব। তা ছাড়া কোনো কারণ দর্শানোর চিঠি পাইনি। তবে মেইলে দিয়ে থাকলে তা চেক করা হয়নি।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের যথাযথ জবাব না পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন গাইবান্ধা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী সাবিউল ইসলাম। কেন মামলা করা হয়নি সে বিষয়ে তিনি কিছু বলতে চাননি।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা