× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

রামগতির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার

২১ বছরেও শুরু হয়নি কার্যক্রম

আমানত উল্যাহ, কমলনগর (লক্ষ্মীপুর)

প্রকাশ : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৮:৫২ পিএম

রামগতির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার। প্রবা ফটো

রামগতির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার। প্রবা ফটো

লক্ষ্মীপুরের রামগতি পৌরসভার চরসেকান্দর এলাকার আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার (অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র) নিজেই দুর্যোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। পর্যবেক্ষণাগারের অফিস, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসিক ভবন, যন্ত্রপাতি- সবই আছে, নেই শুধু ব্যবহারের লোকবল। দিন দিন ব্যবহার অনুপযোগীসহ বখাটে ও নেশাখোরদের আড্ডাখানায় পরিণত হয়েছে। এতে পর্যবেক্ষণাগারটি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য ব্যাহত হচ্ছে। 

জানা গেছে, উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরে প্রায় ১৮ লাখ মানুষের বসবাস। তাদের মধ্যে নদীর পাড়ে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে ৮ লাখ মানুষ। এ ছাড়া মেঘনা নদীতে ৬২ হাজার জেলে প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। যেকোনো দুর্যোগ মুহূর্তে আগাম সতর্কীকরণে বার্তা পেতে সরকার উপজেলার আলেকজান্ডার ইউনিয়নের চরসেকান্দর গ্রামে ২০০২ সালে আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার প্রতিষ্ঠা করে। দেড় একর জায়গাজুড়ে প্রতিষ্ঠিত এ পর্যবেক্ষণাগারটি ২০০৮-০৯ অর্থবছরে আধুনিকায়ন করা হয়। প্রতিষ্ঠার ২১ বছরেও পুরোদমে শুরু হয়নি কার্যক্রম।

আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার সূত্রে জানা গেছে, সরকারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরচালিত এ পর্যবেক্ষণাগারটিতে একজন করে আবহাওয়া সহকারী, সিনিয়র অবজারভাইজার, বেলুন মিকার দুইজন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও চারজন গার্ডÑ মোট আটজন লোকবল থাকার কথা। ২০১৭ সালে এখানে দুইজন করে কর্মকর্তা ও আনসার সদস্য নিয়োগ দেওয়া হয়। আধুনিক সুবিধা-সংবলিত বহুতল বাসভবন ও যন্ত্রপাতিসমৃদ্ধ বহুতল অফিস ভবন রয়েছে। আবহাওয়া পর্যব্ক্ষণে বেলুন মিটার, উইন্ডরান, ডিজিটাল ব্যারোমিটার, অত্যাধুনিক কম্পিউটার, ড্রাই বাল্ব, ওয়েট বাল্ব, থার্মোমিটার ইন্ডিকেটর-স্থাপন করা হয়েছে। কিন্তু লোকবল না থাকায় সেগুলোর সঠিক ব্যবহার হচ্ছে না। 

প্রতিষ্ঠার পর থেকে পর্যবেক্ষণাগারটি কাজে আসছে না বলেও অভিযোগ স্থানীয় লোকজনের। ঝড়-জলোচ্ছ্বাসের তথ্য জানতে অফিসে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায় না বলে জানান রামগতি পৌরসভার বাসিন্দা নিজাম উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘কথা ছিল মেঘনা নদীর জেলেসহ স্থানীয় সাধারণ মানুষ এ আবহাওয়া অফিসের মাধ্যমে পূর্বাভাস পাবে। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেছে তার উল্টো। এখানে কোনো লোকজন থাকে না। দরজা-জানালা খোলা, দিনের বেলায় বাতি জ্বালিয়ে রাখাসহ অফিসের আসবাব এলোমেলো অবস্থায় পড়ে থাকে। এমন পরিস্থিতিতে এ ভবনটি প্রায় পরিত্যক্ত ও অরক্ষিত হয়ে আছে।’

নিজাম উদ্দিন, আতরেজ্জামান, রফিক মালসহ স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, ‘এই কেন্দ্র থেকে জনগণ ও জেলেরা কোনো ধরনের সেবা পাচ্ছে না। কর্মকর্তারা অফিস করেন না, কালেভদ্রে এসে হাজিরাখাতায় সই করে যান। কোটি টাকা ব্যয়ে আবাসিক ভবন নির্মিত হলেও কেউ থাকে না। যার ফলে অযত্ন-অবহেলায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ভবনগুলো। এখন বখাটে ও নেশাখোরদের আড্ডাখানায় পরিণত হয়েছে এটি। এখানে নানান অসামাজিক কাজও হয়ে থাকে। 

অভিযোগ অস্বীকার করে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন বলেন, ‘আমাদের কার্যক্রম এখনও পুরোদমে শুরু হয়নি।’ তবে নিয়মিত অফিস না করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সদুত্তর দিতে পারেননি। 

রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসএম শান্তনু চৌধুরী জানান, ‘বিষয়টি জানা ছিল না। অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখব।’

আবহাওয়া অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগের উপপরিচালক ড. ছাদেকুল আলম বলেন, ‘অফিস তালাবদ্ধ থাকাটাই স্বাভাবিক। আমাদের জনসাধারণের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক থাকার কথা নয়। তা ছাড়া জনবল ঘাটতি আছে। অচিরেই শূন্য পদগুলোতে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে।’ 

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা