× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

বেইলি রোডে আগুন

বিদেশ যাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলো না সাগরের

প্রবা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০১ মার্চ ২০২৪ ১৪:১৬ পিএম

আপডেট : ০১ মার্চ ২০২৪ ১৪:২৬ পিএম

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের আম তলায় বসে বিলাপ করছিলেন নিহত সাগরের কৃষক বাবা আবু তালেব। প্রবা ফটো

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের আম তলায় বসে বিলাপ করছিলেন নিহত সাগরের কৃষক বাবা আবু তালেব। প্রবা ফটো

পাবনার ফরিদপুর উপজেলার হাদল ইউনিয়নের কৃষক আবু তালেবের ছেলে সাগর হোসেন। পরিবারের অভাব অনটনের কারণে উচ্চমাধ্যমিক পাস করে আর পড়াশোনা করতে পারেননি তিনি। ইচ্ছে ছিল ভাগ্যোন্নয়নে বিদেশ যাবেন কিন্তু অর্থাভাবে সেটিও হয়ে ওঠেনি। তাই স্বপ্ন পূরণে বিদেশ যাত্রার টাকা জোগাতে ঢাকায় এসে নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করেন তিনি। মায়ের সঙ্গে গতকাল বৃহস্পতিবার মোবাইল ফোনে কথাও বলেছিল সাগর। মাকে তিনি জানিয়ে ছিলেন দ্রুতই বাড়ি ফিরবেন। তবে মা বুঝতে পারেননি তার সন্তান পরের দিনেই লাশ হয়ে মায়ের কোলে ফিরবেন।

শুক্রবার (১ মার্চ) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের আম তলায় বসে বিলাপ করছিলেন সাগরের কৃষক বাবা আবু তালেব। আগুনে পুড়ে ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে সকালে ঢাকায় আসেন তিনি।

আবু তালেব বলেন, ‘দুই সন্তানের মধ্যে সাগর ছিল বড়। সংসারে অভাবের কারণে উচ্চমাধ্যমিক পাস করার পর আর পড়াশোনা করতে পারেনি। বিদেশে যাওয়ার টাকা দিতে পারিনি। তাই ছেলে গত বছরের জুলাই মাসে ঢাকায় এসেছে কাজ করে বিদেশে যাওয়ার টাকা জোগাড় করতে। তার মালয়েশিয়া যাওয়ার কথা ছিল। ছেলের বিদেশ যাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হয়নি। তবে ঢাকায় কোন কোম্পানিতে কাজ করত সে সেটিও জানতে পারিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল রাতেও ছেলে তার মায়ের সঙ্গে কথা বলেছে। আর কয়েকদিন পর বাড়িতে ফেরার কথা ছিল তার। এরই মধ্যে রাতে বিদেশ থেকে আমার ভাতিজা জানায়, সাগর যেখানে চাকরি করত সেখানে আগুন লেগে সাগর আহত হয়েছে। সকালে জানতে পারি সে আর বেঁচে নেই।’ 

যেভাবে ছেলেকে শনাক্ত করলেন বাবা

আবু তালেব বলেন, ‘আমার ছেলের চেহারা বাদে পুরো শরীর পুড়ে গেছে। তবে চেহারাটা দেখে চেনা গেছে। এ ছাড়া হাতে থাকা ব্যাচলাইট দেখে ছেলেকে শনাক্ত করতে পেরেছি। 

সাগর পাবনার ফরিদপুরের ইউনুস আলী ডিগ্রি কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। এর ঢাকায় এসে একটি নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানে কাজ শুরু করেন। সর্বশেষ বেইলি রোডের ‘গ্রিন কোজি কটেজ’ নামের ভবনের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। দুই-ভাই বোনের মধ্যে সে ছিল বড়।

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে ভবনটিতে আগুন লাগে। আগুনে হতাহতদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়।

আগুনে নিহতদের দেহ স্বজনদের হস্তান্তর শুরু হয় সকাল ৬টার দিকে। হস্তান্তরপ্রক্রিয়ায় যুক্ত রয়েছেন জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।এখন পর্যন্ত ৪৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা