× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

ভোট দিতে না পারার অক্ষমতায় রাজনীতির প্রতি তরুণদের অসন্তোষ বাড়ছে: পিটার হাস

প্রবা প্রতিবেদন

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০০:০৩ এএম

আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০০:০৩ এএম

ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস। ফাইল ছবি

ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস। ফাইল ছবি

ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেছেন, বাংলাদেশের তরুণদের রাজনীতির প্রতি অসন্তোষ বাড়ছে। এসব কারণের মধ্যে রয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে রাজনৈতিক সহিংসতা, দুর্নীতি, বাক্‌স্বাধীনতায় বাধা, যে দল ক্ষমতায় থাকে তাদের একচেটিয়া ছাত্ররাজনীতি, রাজনীতিবিদ ও রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার প্রতি আস্থার অভাব এবং ভোট দিতে না পারার অক্ষমতা।

বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে রাজধানীর একটি হোটেলে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল আয়োজিত ‘যুব আলোচনা, নাগরিক প্রত্যাশা’ শিরোনামে জাতীয় যুব সম্মেলনে এসব কথা বলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। সম্মেলন বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা তরুণেরা তাদের মতামত তুলে ধরেন।

এ সময় সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান এবং জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম।

তরুণদের ভাষ্য তুলে ধরে পিটার হাস বলেন, গণতন্ত্রের চর্চার জন্য তরুণদের সোচ্চার হতে হবে।

তিনি আরও বলেন, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন তখনই সম্ভব, যখন সব ধরনের মানুষ ভূমিকা পালন ও সুযোগ পায়। নাগরিকদের প্রত্যাশা পূরণ করতে না পারা রাজনৈতিক দল ভোটে হেরে যায়।

সমাপনী পর্বে অতিথির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেন, নাগরিকদের প্রত্যাশাকে অগ্রাধিকার দেওয়ার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। এর সঙ্গে রাজনীতি ও নির্বাচন যুক্ত। রাজনৈতিক দল তাদের পরিকল্পনা নাগরিকদের কাছে তুলে ধরে এবং নাগরিকেরা সিদ্ধান্ত নেন কোন দল তাদের জন্য ভালো ও সে অনুযায়ী ভোট দেন। যে দল নাগরিকদের অগ্রাধিকারকে গুরুত্ব দিতে ব্যর্থ হয়, সে দল ভোটে হেরে যায়। ভোটে জেতা ও হারা এ দুটো বিষয়ই কার্যকর গণতন্ত্রের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে ছাত্ররাজনীতির ভূমিকা সবাই জানে। বাংলাদেশের ভিত্তি মজবুত করেছে ছাত্ররাজনীতি। তবে এই অনুষ্ঠানে শুনেছি রাজনীতিতে তরুণদের অংশগ্রহণের সংস্কৃতি কমে যাচ্ছে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে রাজনৈতিক সহিংসতা হচ্ছে। দুর্নীতি, বাক্‌স্বাধীনতায় বাধা থাকায়, রাজনীতিবিদ ও রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় আস্থা হারিয়ে যাওয়ার কথা বলছেন তরুণেরা। এসব কারণে রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় অসন্তোষ বাড়ছে তরুণদের।

মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, আগামীর পথচলাকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন তরুণেরা। তারা নতুন নতুন ধারণা নিয়ে আসবেন। তরুণদের দায়িত্ব এই পরিস্থিতিতে পরিবর্তন করা। তরুণদের কণ্ঠ ও উদ্যোগে তারা যেমন বাংলাদেশ দেখতে চান, তা গড়ে উঠবে। তরুণেরা এগিয়ে এলেই পরিবর্তন আসবে। সহিংসতামুক্ত বাংলাদেশ গড়ে উঠবে। রাজনৈতিক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে পিটার হাস বলেন, রাজনৈতিক দলের ভেতরে গণতন্ত্রের চর্চার জন্য আপনারা সক্রিয় হোন। আপনারা সোচ্চার হলে দল তরুণদের দাবির প্রতি আগ্রহ দেখাতে শুরু করবে।

ভুয়া তথ্যের বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে পিটার হাস বলেন, আমার অফিসিয়াল কোনো টুইটার অ্যাকাউন্ট নেই। অথচ আমার নামে একাউন্ট খুলে অনেক মন্তব্য সেখানে পোস্ট করা হয়। এমন এমন জায়গায় যাওয়ার ছবি প্রকাশ করা হয়, যেখানে যায়নি। এটা শুধু আমার সঙ্গে নয়, অনেকের সঙ্গেই হচ্ছে। তরুণদের এসব ভুয়া তথ্যের উৎস বন্ধ করতে হবে।

তিনটি রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণকে স্বাগত জানিয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, বিরোধিতা থাকা সত্ত্বেও তারা এসেছেন, এটা প্রশংসনীয়। সমাজে সমস্যাগুলো একে অপরের সঙ্গে কথা না বলে সমাধান করা কঠিন।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ বলেন, ছাত্র অবস্থায় অনেকেকে দেখেছি যে ১০ বছর আগে যিনি ভ্যানগাড়িতে চড়তেন, রাজনীতি করে তিনি এখন পাজেরো চালাচ্ছেন। ফলে রাজনীতি নিয়ে তরুণদের মধ্যে এক ধরনের দ্বিধা কাজ করে। রাজনীতির মধ্যে কীভাবে ঢুকবেন, একবার ঢুকে গেলে হয়তো বের হতে পারবেন না।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান বলেন, এখন দেশে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে যে তরুণেরা রাজনীতিতে আসতে ভয় পাচ্ছেন। তাদের মনে প্রশ্ন কেন ২০১৪ ও ২০১৮ সালে ভোট দিতে পারেননি?

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম বলেন, ভোটের মাধ্যমে তরুণেরা সমাজকে একটি কাঠামো দিতে পারেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের চিফ অব পার্টি ডানা এল ওল্ডস।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা